ঢাকা   ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । সোমবার । রাত ৩:০৫

লালমোহনে মাদকের ছড়াছড়ি: ধ্বংস পথে যুব সমাজ

অনলাইন ডেক্স // ভোলার লালমোহনে এখন প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মাদক প্রতিরোধে পুলিশ-প্রশাসনের উদ্যোগে মাঝে মধ্যে মাদক বিরোধী সভা-সমাবেশ করলেও এতে কোন লাভ হচ্ছে না। পুলিশ-প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলছে মাদকের রমরমা ব্যবসা। হাত বাড়ালেই মিলছে নানা ধরণের মাদকদ্রব্য। এক সময় শুধু গাজার রাজত্ব ছিল এখানে। গাঁজার পাশাপাশি এখন ভয়ঙ্কর মাদক ইয়াবার রাজত্ব চলছে। আইনশৃঙ্খা কমিটির সভায় মাদক প্রতিরোধ নিয়ে সবাই ভাল ভাল কথা বলে দায় এড়িয়ে যায়। তবে বাস্তবে এর কোন ফল পাওয়া যায় না। লালমোহনে এখন প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি করা হচ্ছে। মাদক নিয়ন্ত্রনে প্রসাশন উদ্যোগ নিলেও কোন কাজ হচ্ছে না। এভাবে চলতে থাকলে মাদকের বিস্তার কমানো যাবে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, একজন মাদক ব্যবসায়ী আটক করা হলে অনেকে তদবির শুরু করে। পুলিশ-প্রশাসনের বিরুদ্ধে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে নালিশ করা হয়। তো বিভাবে মাদকের বিরুদ্ধে লড়াই করবে পুলিশ।

জানা গেছে, এখন গাঁজা-ফেন্সিডিল ও বিআরের পাশাপাশি হরদমে চলছে মরণ নেশা ইয়াবার। যা প্রকাশ্যে বিক্রি করছে ব্যবসায়ীরা। ইয়াবার ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পড়ছে ভাল ভাল পরিবারের সদস্যরা। তাই স্থানীয়রাও ভয়ে কেউ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন না। এসব মাদক ব্যবসায়ীরা সবাই অল্প বয়সী। এরা যে মাদকের ব্যবসায় জড়িত তা হঠাৎ কেউ বিশ্বাস করবে না। কারণ এরা সবাই ভাল পরিবারের সন্তান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক অভিভাবক অভিযোগ করে বলেন, মাদকের ভয়ানক থাবায় ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে আমাদের আল্প বয়সী ছেলেরা। ধ্বংস হচ্ছে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরাও। তাদের মতে নতুন নতুন মাদক ব্যবসায়ী হওয়ার কারণে বাড়ছে মাদক সেনবকারীর সংখ্যাও। এসব মাদক ব্যবসায়ীরা মাদক তুলে দিচ্ছে উঠতি বয়সী যুবকদের হাতে। যার মধ্যে বেশিভাগ স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। মা-বাবার চোঁখের সামনে মাদকাসক্ত হচ্ছে যুবক ছেলে। এ কষ্ট কিভাবে মেনে নিবে অভিভাবকরা। তাই মাদকাসক্ত সন্তানদের চরম দু:শ্চিন্তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে অভিভাবকরা। যুব সমাজকে রক্ষা করতে হলে এসব মাদক ব্যবসায়ীদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনতে হবে।

লালমোহন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, আমরা মাদক নির্মূলে দ্রুত একটি সাঁড়াশি অভিযান চালাবো।

লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কে ফোনে না পাওয়াতে তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি ।

%d bloggers like this: