ঢাকা   ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । শনিবার । দুপুর ১২:১৩

মেহেন্দিগঞ্জে ইউপি নির্বাচন নিয়ে দুই প্রার্থীর সমর্থক ও পুলিশের ত্রিমুখী হামলায় ৭ পুলিশসহ আহত ৩৫, গ্রেফতার ৭

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিন উলানিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক ও পুলিশের মধ্যে ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনায় ৭ পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর মেহেন্দিগঞ্জের দক্ষিন ও উত্তর উলানিয়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। আর এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সরকারি কাজে বাঁধাদান ও পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে আওয়ামী লীগ ও বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের আসামী করে গতকাল শনিবার এই মামলা দায়ের করে পুলিশ। এ ঘটনায় প্রাথমিকভাবে উভয় পক্ষের ৭জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ঐ এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে আচরণ বিধি ভঙ্গের দায়ে দক্ষিন উলানিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী রুমা সরদারকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত। এ ঘটনায় প্রতিপক্ষ উল্লাস করে। এ নিয়ে ঐদিন রাত ৯টার পর থেকে উলানিয়ার লালগঞ্জ বাজারে নৌকা মার্কার প্রার্থী কাজী আব্দুল হালিমের সমর্থকদের সাথে প্রতিপক্ষ বিদ্রোহী প্রার্থী রুমা সরদারের সমর্থদের সাথে সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেস্টা করলে উভয় পক্ষ পুলিশের উপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় ৪৬ রাউন্ড গুলি করে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে। বিবাদমান দুই পক্ষের হামলায় ৭ পুলিশ সদস্য সহ উভয় পক্ষের ৩৫ জন আহত হয়। এদের মধ্যে গুরুতর ৩ পুলিশ সদস্যকে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। উভয় পক্ষের আহতদের মধ্যে ১০ জনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং অন্যান্যদের বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষে পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় এবং সরকারি কাজে বাঁধাদানের অভিযোগে গতকাল শনিবার সকালে পুলিশ বাদী হয়ে উভয় পক্ষের অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। বরিশালের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নাঈমুল হক জানান, পুলিশের ওপর হামলা ও পুলিশকে আহত করার ঘটনায় এবং সরকারি কাজে বাঁধা দেয়ার মামলায় পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ ৭জনকে গ্রেপ্তার করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে ঐ এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

%d bloggers like this: