ঢাকা   ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । বৃহস্পতিবার । বিকাল ৪:৪৬

মেহেন্দিগঞ্জের নৌকা কর্মীদের উপর সন্ত্রাসী তান্ডব! অভিযোগের তীর পংকজ নাথ এমপি’র দিকে

অনলাইন ডেস্কঃ মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া উত্তর ও দক্ষিণ ইউনিয়নে এমপি পংকজ নাথ’র নির্দেশে সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ। অভিযোগকারী স্থানীয় আ’লীগ নেতাকর্মীরা জানান তার পোষাকি সন্ত্রাসীরা মেহেন্দিগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা হতে অর্থাৎ বহিরাগতরা নির্বাচনী এলাকায় গিয়ে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে নৌকার কর্মীদের মারধর করে রক্তাক্ত করছে।

বুধবার দুই ইউনিয়নে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত করেছেন নৌকার প্রায় ১০/১৫ জন কর্মীকে। এমনকি তারা রাতের অন্ধকারে চুরি, ডাকাতি, এবং সুন্দরী মেয়েদের ইজ্জ্বতহানী করে চলেছেন। এই যেন অখন্ড এক মায়ানমার।

উল্লেখ, গত ২২ নভেম্বর সন্ধার পর নির্বাচনকে সামনে রেখে মেহেন্দিগঞ্জে একটি শোক সভার নামে এমপি পংকজ নাথ প্রকাশ্য নৌকার বিরোধিতা করে বিদ্রোহীদের সমর্থন দেওয়ার পর থেকেই তার পোষাকি সন্ত্রাসীরা এমন তান্ডবলীলা চালিয়ে যাচ্ছেন। উত্তর উলানিয়া ইউনিয়নের নৌকার মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম জামাল মোল্লা বলেন, নৌকার বিজয় ঠেকাতে আদাজল খেয়ে মাঠে নেমেছে পংকজ নাথ এমপির অনুসারীরা। এলাকায় তার প্রচারে গনজোয়ার এবং ব্যাপক সাড়া পড়েছে।

দক্ষিণ উলানিয়া ইউনিয়নের নৌকার মনোনীত প্রার্থী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও যুবলীগ নেতা আঃ আলীম চৌধুরী মিলন একই কথা বলছেন। উল্লেখ, এর আগেও আওয়ামীলীগের বিতর্কিত সাংসদ এক সময় বিএনপির হাওয়া ভবনের দালাল পংকজ নাথ দুইটি উপজেলা চেয়ারম্যানসহ মোট ৮টি নৌকা ডুবিয়েছেন। অসংখ্য বিএনপির নেতাকর্মীদের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠা করে তার স্বঘোষিত বিভিন্ন কমিটিতে স্থান দিয়ে আ’লীগের দীর্ঘদিনের ত্যাগী পরিক্ষিতদের মামলা হামলা করে এলাকা ছাড়া করেছেন। এছাড়াও গত ইউপি পরিষদ নির্বাচনে নৌকার দুই কর্মীকে পিটিয়ে হত্যা করারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। বার বার নৌকা প্রার্থীদের হারিয়ে এলাকায় স্থানীয় আ’লীগ’কে কোনঠাসা করেছেন। যদিও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস বরিশালের এক সাংবাদিককে বলেছেন এমপি পংকজ নাথ বর্তমানে আওয়ামী লীগের কেউ না, তাই নৌকা দেখলেই তার গা জ্বালা হয় । এছাড়াও তার অনুসারী উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম ভুলু স্বঘোষিত আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি করে নৌকার বিদ্রোহীদের পক্ষে কাজ করছেন । এরা জেলার নির্দেশ এবং প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশও মানছেন না। তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। সেখানে আতঙ্কের অপর নাম জলদস্যু ও ভূমিদস্যু খ্যাত মরহুম আলতাফ হোসেন সরদারের ছেলে ইয়াবা ব্যবসায়ি তারেক সরদার। তারেক, হলেন দক্ষিণ উলানিয়া ইউনিয়নের নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী রুমা বেগম’র ছেলে। তারেকের নেতৃত্বে মোশাররফ, চুন্নুসহ ২০/৩০ সন্ত্রাসী প্রকাশ্য অস্ত্রের মহড়া দিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী রুমা বেগম আর বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মোশাররফ হোসেন মশু হলেন আপন মামি-ভাগিনা। উলানিয়া উত্তর ইউনিয়নের আরেক বিদ্রোহী ঘোড়া মার্কার পংকজ নাথ মনোনীত প্রার্থী নুরুল ইসলাম মিঠু চৌধুরী হলেন বিএনপি পরিবারের। প্রার্থীর আপন ভাই ওই ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও ওই ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ফয়সাল চৌধুরী হলেন চাচাতো ভাই। নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থীদের পৃষ্ঠপোষক এমপি পংকজ নাথ হওয়ায় এ উপজেলায় সবচেয়ে বেশি অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে । রক্তাক্ত জনপদ হিসেবে খ্যাতি পেতে যাচ্ছে এ দুই ইউনিয়ন। উলানিয়া উত্তর ও দক্ষিণ ইউনিয়নের ভোটারদের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা দাবী। শান্তিতে ঘুমাতে পারছেন না এ দুই ইউনিয়নের মানুষ।সুত্রঃ স্থানীয় পত্রিকা,অনলাইন পোর্টাল,ভুক্তভুগী নেতাকর্মী।

%d bloggers like this: