ঢাকা   ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । সোমবার । রাত ৩:৫৯

বরিশালে ভুয়া নিয়োগে শিক্ষক জাহাঙ্গীরের ৩০বছর পার!

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশাল নগরীর ঐতিহ্যবাহী জগদীশ সারস্বাত গার্লস স্কুল কলেজের স্কুল শাখার এক সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভুয়া নিয়োগে ৩০ বছর চাকুরী করার অভিযোগ উঠেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসেন মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এবং জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে এমন লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ পাওয়ার পর বরিশাল জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আনোয়ার হোসেন বরিশাল সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে বলেছেন। এদিকে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের শিক্ষা কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক আদেশে ও সহকারী শিক্ষকের সরকারী ও অভ্যন্তরীন বেতন ভাতা বন্ধ সহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে জগদীশ সারস্বত গার্লস স্কুল কলেজের প্রধান শিক্ষককে নির্দেশ দিয়েছেন। উল্লেখিত স্কুলের ওই সহকারী শিক্ষকের নাম মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। তিনি স্কুল বিভাগে সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন ১৯৯০ সালের ১ জুলাই। প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসাইনের অভিযোগে বলা হয়েছে ১৯৮৯ সালের ৭ ডিসেম্বর দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে জগদীশ সারস্বত গার্লস স্কুলে একজন করে ইংরেজি ও গনিত বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। ওই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ভিত্তিতে যোগ্যতা যাচাই পুর্বক ইংরেজি বিষয়ে নিয়োগ দেয়া হয় ক্ষিরোদ লাল করকে (ইনডেক্স নং ১৯১৯২১)। গনিত বিষয়ে নিয়োগ পান বিজয় কৃষ্ণ ঘোষ (ইনডেক্স নং ২০৯৯৩৯)। এ দুজনকে ১৯৯০ সালের ১৯ জুন নিয়োগ দেয়া হয়। একই তারিখে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া হয় কৃষি বিজ্ঞান এর শিক্ষক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনকে (ইনডেক্স নং ২০৫৬৪৭)। সাবেক সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসাইনের অভিযোগ, ইত্তেফাকে প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ইংরেজি ও গনিত বিষয়ে দুইজন শিক্ষক নিয়োগের কথা উল্লেখ করা হলেও বেআইনি ভাবে তখন কৃষি বিভাগের শিক্ষক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনকে নিয়োগ দেয়া হয়। অথচ প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে অদ্যাবধি জগদীশ সারস্বত গার্লস স্কুল কলেজে স্কুল শাখায় কৃষি বিজ্ঞান বিষয়ে পাঠদানের অনুমোদন নেই। বিদ্যালয়ে যে বিষয়ে পাঠদানের অনুমোদন নেই সে বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগ বৈধ হতে পারেনা। ভুয়া তথ্য দিয়ে অবৈধ ভাবে জাহাঙ্গীর হোসেন সরকারি ও বিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীন খাত থেকে বেতন ভাতা বাবদ লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে আত্নসাত করেছে। এ ব্যাপারে বরিশাল জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, সাবেক সভাপতির লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে লিখিত নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। জগদীশ সারস্বত গার্লস স্কুল কলেজের বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ শাহ আলম তার প্রতিষ্ঠানের স্কুল শাখায় কৃষি বিজ্ঞান বিষয়ে পাঠদানের অনুমোদন নেই জানিয়ে বলেন, যে বিশহয়ে পাঠদান হয়না সে বিষয়ে শিক্ষকেরও প্রয়োজন হয়না। জাহাঙ্গীর হোসেন ভুয়া নিয়োগে সরকারের প্রায় অর্ধ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। অভিযুক্ত শিক্ষক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন দাবি করেছেন, বৈধ প্রক্রিয়ায় তার নিয়োগ হয়েছে। সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসাইনের অভিযোগে অসত্য ভিত্তিহীন। জাহাঙ্গীর হোসেন পাল্টা প্রশ্ন করেন, “তিনি (আনোয়ার হোসাইন) যখন সভাপতি ছিলেন তখন কেন তদন্ত করে ব্যাবস্থা নেননি?” তবে সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসাইন থাকাকালীন সময়েও তো আপনাকে বেশ কয়েকবার একই অভিযোগে সোকজ করা হয়েছে। তার জবাবও তো আপনি দিতে পারেননি। এই পাল্টা প্রশ্নেরও কোন জবাব দিতে ব্যর্থ হয়েছেন জানাতে চাইলে তিনি (জাহাঙ্গীর হোসেন) একটু ব্যাস্ত আছেন বলে ফোন রেখে দেন।

%d bloggers like this: