ঢাকা   ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । মঙ্গলবার । সন্ধ্যা ৬:২৫

বরগুনায় পর্নোগ্রাফি মামলায় দুই যুবক জেলহাজতে

অনলাইন ডেস্কঃ বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের গুরুদল গ্রামের এক প্রবাসীর স্ত্রী ও দুই সন্তানের জননীর দায়ের করা পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলায় একই গ্রামের আবদুর রাজ্জাক প্যাদা লিমন (৩৫) ও মো. মিঠু চৌকিদার (৩১) নামে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে আমতলী থানা পুলিশ।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) তাদের দুজনকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

প্রবাসী স্ত্রীর দায়ের করা মামলা সূত্রে জানা যায়, তার স্বামী প্রবাসে থাকার সুবাদে মামলার আসামিরা বিভিন্ন সময় তাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসতো। এতে মামলার বাদী রাজি না হওয়ায় আসামিরা তাকে বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও মান-সম্মান নষ্ট করার ভয় দেখিয়ে তাদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলাতে বাধ্য করে। একপর্যায়ে আসামিরা বাদীর কাছে তার নগ্ন ছবি ও ভিডিও কলে কথা বলতে চায়। এতে প্রথমে বাদী রাজি না হলে মান-সম্মান নষ্ট করার হুমকির ভয়ে আসামিদের সঙ্গে অর্ধনগ্ন হয়ে ভিডিও কলে কথা বলতে বাধ্য হন। এরপর আসামিরা বেপরোয়া হয়ে ওই ভিডিও কলের স্ক্রিনশর্ট ধারন করে শারীরিক সম্পর্কের জন্য কুপ্রস্তাব দেয়। এতে বাদী রাজি না হলে ওই ভিডিও কলের স্ক্রিনশর্টগুলো আসামিরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিতে থাকে। ওই হুমকিতে বাদী রাজি না হলে গত ২১/১১/২০২১ ইং তারিখ মামলার ০১ নম্বর আসামি আবদুর রাজ্জাক লিমন প্যাদা অন্যান্য আসামিদের সহযোগিতায় পরস্পর যোগসাজশে তাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে বাদীর নগ্ন ছবি এলাকার বিভিন্ন লোকজনের মোবাইল ফোনে সরবরাহ করে সামাজিক ও ব্যক্তি মর্যাদাহানি করে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই প্রবাসীর স্ত্রী শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাতে আবদুর রাজ্জাক লিমন প্যাদা, মো. মিঠু চৌকিদার, মো. আসাদ হাওলাদার, মো. জাকারিয়া হাওলাদার, মো. রাসেদুল হাওলাদারসহ অজ্ঞাত আরও তিন/চারজনকে আসামি করে ২০১২ সালের পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে নারীর অজ্ঞাতে তার নগ্নছবি মোবাইল ফোনে ধারন করে একে অপরে যোগাসাজশে অন্য মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে সামাজিক ও মানসিকভাবে মর্যাদাহানি করার অপরাধ আইনে মামলা দায়ের করেন।

রাতেই ওই মামলায় ১ নম্বর আসামি আবদুর রাজ্জাক প্যাদা লিমন ও ২ নম্বর আসামি মো. মিঠু চৌকিদারকে আমতলী থানার এসআই আব্দুল হাই ফকির গ্রেফতার করে। শনিবার দুপুরে গ্রেফতার দুই আসামিকে আমতলী উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মিজানুর রহমান মোবাইল ফোনে বলেন, এক প্রবাসীর স্ত্রীর করা পর্নোগ্রাফি আইনে মামলায় দুই আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে বরগুনা জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

%d bloggers like this: