ঢাকা   ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । শনিবার । দুপুর ১২:২৩

নীলফামারীতে পুর্ব শত্রুতার জেরে দলিল লেখক সমিতির সভাপতিকে মারধর, সংবাদ সম্মেলন

আব্দুল মোমিন, নীলফামারীঃ নীলফামারীর জলঢাকায় পূর্ব শত্রুতার জের  ধরে সরকার আনিছুর রহমানের হাতে দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আহাম্মদ হোসেন ভেন্ডারকে মারধোরের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার (১২ অক্টোবর) বিকালের ঘটনাকে কেন্দ্র করে জলঢাকা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক সমিতির কক্ষে আনিছুর রহমানের এই অশোভনীয় আচরণের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে সমিতির সভাপতিসহ সকল সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতি আহাম্মদ হোসেন ভেন্ডার বলেন, আনিছুর রহমান, লাইসেন্স নং-০৯/২০১০ একজন দলিল লেখক হলেও তার কাছ থেকে আমরা বিভিন্ন সময় অশোভনীয় আচরণ লক্ষ করেছি। এর আগেও সে অন্যান্য সরকারদের সাথে সময়ে অসময়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।
এসব অভিযোগ সমাধানের জন্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন সরকার আনিছুর রহমানকে ডাকলে সাব-রেজেস্ট্রি অফিসের ভিতরে এজলাসের সামনে গালিগালাজ করে সেইসাথে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় সাধারণ সম্পাদককে। এক পর্যায়ে আমি সেখানে উপস্থিত হয়ে বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করলে আনিছুর রহমান ও তার মক্কেল আমাকে মারধোর করে এবং প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। এর পর অফিসের বাইরে গিয়ে তার হাতে থাকা দলিলটি সে নিজেই ছিড়ে ফেলে। আরও একজন দলিল লেখক মোখলেছার অভিযোগ করে বলেন, এর আগে সামান্য বিষয় নিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে লাঠি দিয়ে আমার হাত ভেঙ্গে দেয়ার ঘটনায় ৩ মাস রংপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলাম। পরে আমি মামলা করি। এরপর উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশে মামলাটি মিমাংশা করি। কয়েকদিন আগে সে আবারও আমার হাত কেটে ফেলার হুমকি দেয়। আমি বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সভাপতি আরও অভিযোগ করে বলেন, আমরা সর্বোমোট এক শত চৌদ্দ জন দলিল লেখক আছি। আমাদের সে কোন ধরণের তোয়াক্কা করেনা। আমরা জলঢাকা দলিল লেখক সমিতির
সকল সদস্য আলোচনা সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো সেইসাথে আইনি প্রকৃয়ায় তার কঠোর শাস্তি কামনা করছি।
জানতে চাইলে আনিছুর রহমান সরকার বলেন, দলিল প্রতি নজরুল সরকার সমিতির নামে মোটা অংকরে টাকা নেয়। আমার মক্কেল গরিব হওয়ায় আমি টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে এ ঘটনা ঘটে। দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ-সম্পাদককে মারধরের বিষয়টি সে কৌশলে এড়িয়ে যায়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমজাদ হোসেন সরকার, উপদেষ্টা বিমল কুমার রায়, যুগ্ন সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলামসহ অন্যান্য সদস্যরা। এ সময় জেলায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

%d bloggers like this: