ঢাকা   ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । মঙ্গলবার । দুপুর ১:০৩

কলাপাড়া আ’লীগে বিভক্তি: ত্যাগী নেতাকর্মীরা মামলার আসামি

অনলাইন ডেস্কঃ ইব্রীডদের কারণে বিভক্তিসহ বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ছে পর্যটন নগরী কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগে। এদের দাপটে দলের পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা হয়ে পড়েছে কোটঠাসা। একাধিক মামলায় আসামী হয়েছে অনেকে ত্যাগী নেতাকর্মী। আসন্ন পৌর নির্বচনকে কেন্দ্র করে এ বিভক্তি আরও বেশি প্রকট হচ্ছে। উড়ে এসে জুড়ে বসা এসব হাইব্রীডদের নেতিবাচক কর্মকান্ডে বিব্রত মাঠপর্যায়ের সাধারণ কর্মীরা। এখনই সাংগঠনিক উদ্যোগ না নিলে পৌর নির্বাচনসহ স্থানীয় রাজনীতিতে এর বড় ধরনের প্রভাব পড়বে। এমন শংকা ও দাবি স্থানীয় নেতাকর্মীদের।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের একাধিক দায়িত্বশীল নেতাসহ স্থানীয় সূত্র জানায়, পর্যটন নগরী কুয়াকাটার উন্নয়নের জন্য ২০১০ সালের ১৫ ডিসেম্বর জেলার মহিপুর থানার লতাচাপলী ইউনিয়কে বিভক্ত করে কুয়াকাটা পৌরসভা ঘোষণা করা হয়। ফলে আওয়ামী লীগের দুর্গখ্যাত এ এলাকার রাজনীতিতে আসে ভিন্ন রূপ। সুযোগ বুঝে দলে প্রবেশ করে বিভিন্ন দলের নেতাকর্মী। এসব অনুপ্রকেবশকারীদের অনেকেই সরকারী খাস জমির ভুয়া খতিয়ান তৈরি করে বিক্রির সাথে জড়িত। জমির দালাল ও দখলকারী এসব হাইব্রীডরা কালো টাকার মালিকদের টাকা সাদা করে নিজেরাও হয়েছেন কোটি কোটি টাকার মালিক। এসব বাণিজ্যসহ নিজের অবৈধ কাজের সুরক্ষায় যে ক্ষমতায় তারা সে দলে যোগদান করে।

বিএনপি থেকে জাতীয়পার্টি হয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগে যোগদানকারী আনোয়ার হাওলাদার ২০১৫ সালে জাতীয়পার্টির টিকিট নিয়ে নির্বাচন করেছে। বর্তমানে আওয়ামী লীগের টিকিট প্রাপ্তির প্রত্যাশায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন।সূত্রটির দাবি, আগামী পৌর নির্বাচনে টিকিট প্রাপ্তিতে ব্যর্থ হলে অপেক্ষাকৃত দুর্বল দলীয় প্রার্থী দিয়ে নিজে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে জয়লাভ করার পরিকল্পনা করেছেন।কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহজাহান হাওলাদার, জাফর মুন্সী বলেন, আওয়ামী লীগে যোগ দিলেও দলীয় সদস্য পদ না পাওয়া হাইব্রীডরা নিজের আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া হয়ে উঠেছে। পৌর নির্বাচনে নৌকার টিকিট পাওয়ার আশায় দলের মধ্যে বিভক্তি তৈরি করছে।

কুয়াকাটা পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি মজিবুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু, আওয়ালীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের কঠোর সমালোচনাকারীরা এসব হাইব্রীডরা এখন জয় বাংলা শ্লোগান দেয়। বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার আহবায়ক দাবি করে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা, স্থানীয় সাংসদসহ জেলা নেতৃবৃন্ধের ছবি দিয়ে পোস্টার ব্যানার ছাপায়।

ছাত্রনেতা সাদ্দাম হোসেন বলেন, হাইব্রীডদের বিরোধীতা করে ছাত্রলীগ সভাপতি মজিবরসহ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউসুব হাওলাদর, দুলাল শিকদার, আবৃুল হোসেন ফরাজী, নিজাম বেপারী, আসাদুজ্জামান কবির, আমির হোসেন, আবুল হোসেন একাধিক মামলার আসামী হয়েছেন।কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারেক মোল্লা বলেন, অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়ে দল কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ভিপি আব্দুল মান্নান বলেন- অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়ে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে। তাদের বিষয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। দলীয় নির্দেশনা অমান্য করে কেউ যদি বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী, স্থানীয় সাংসদসহ জেলা নেতৃবৃন্দের ছবি দিয়ে পোস্টার ব্যানার করে থাকে তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

%d bloggers like this: