ঢাকা   ২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । সোমবার । সকাল ৮:০২

করোনার মধ্যেও থেমে নেই সুদি ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য

অনলাইন ডেস্কঃ বাংলাদেশের এনজিও, মাল্টিপারপাস, সমবায় সমিতি ও সুদি ব্যবসায়ীরা গরীব, দুঃখী ও অসহায় মানুষদের সঙ্গে চরম নিষ্ঠুর আচরণ করছে। যাহা অত্যন্ত মানবাধিকার লংঘন। কিছু এনজিওর বিরুদ্ধে মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি লক্ষ্য করা গেছে। এরা অনেকের সঞ্চয় নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে, আর ডিপিএস মেয়াদের আগে ভাঙলে তাতে কোন লাভ দিচ্ছে না। কেউ অসুস্থ হলে বা পঙ্গুত্ব বরণ করলে, তারা কোনো সহানুভূতি দেখায় না, বলে মারা গেলে টাকা মাফ। কোন সদস্য 50,000 টাকা ঋণ নিলে তার কাছ থেকে সঞ্চয়, ডিপিএস, বীমা ও অফিস খরচ বাবদ প্রায় 8 থেকে 10 হাজার টাকা কর্তন করে রাখে। অথচ তাদের কাছ থেকে 57 হাজার পাঁচশত টাকা আদায় করা হয়। গ্রাহক কোন বিপদে পড়লে এনজিও গুলো তাদের ব্যাপারে কোন মায়া, মমতা দেখায় না। বরং তারা কৌশলে সদস্যের কাছ থেকে পাস বই চেক করার কথা বলে নিয়ে যায়। বলে অফিসে অডিট আসছে, পাশ বই চেক করা লাগবে। তখন সদস্য সরল বিশ্বাসে পাস বই তাদেরকে দিয়ে দেয়। তখন তারা ব্লাংক চেকে তাদের ইচ্ছেমতো টাকার পরিমাণ বসিয়ে, ব্যাংক থেকে চেক ডিজঅনার করিয়ে, কোন লিগ্যাল নোটিশ না পাঠিয়ে, আদালতে এন আই এক্ট এর 138 ধারায় চেকের মামলা দিয়ে দেয়। তখন সদস্যের কাছে পাশ বই ও থাকে না। তখন তারা বলে যে পরিমাণ টাকা চেকে উল্লেখ আছে, সে পরিমাণ টাকা দিলে মামলা তুলে নিব। এরকম করে এনজিওর ম্যানেজাররা গ্রাহকদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। গত 14- 11- 2019 ইংরেজি তারিখে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে, পল্লী কর্ম- সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) আয়োজিত উন্নয়ন মেলা 2019 এর উদ্বোধন কালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন ক্ষুদ্রঋণে দারিদ্র লালন- পালন হয়। ক্ষুদ্রঋণ স্বাধীনতার পরপরই জাতির পিতা শুরু করেছিলেন। যদিও আমাদের দেশে কেউ কেউ ক্ষুদ্রঋণের প্রবক্তা সেজে, বিশ্ব ভালো নাম করে ফেলেছেন। কিন্তু দেখা গেছে হয়তো নিজে যতটা নাম কামিয়েছেন, দেশের মানুষ ততটা শুভ ফল পায়নি, এটা হল বাস্তব। বাংলাদেশের সাধারণ জনগণ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছে। গ্রাহকদের দাবি সরকার যেন, অবিলম্বে নিরপেক্ষ তদন্ত কমিশন গঠন করে, এইসব অসাধু এনজিওর বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে। চলমানঃ

সুত্রঃ বাংলাদেশ ক্রাইম নিউজ

%d bloggers like this: