ঢাকা   ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ । ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ । শনিবার । দুপুর ১২:০১

এবার গৃহবধূকে রাতভর গ্ণধর্ষণ,অতঃপর

অনলাইন ডেস্কঃ রংপুরের কাউনিয়ায় অটোরিকশা থেকে নামিয়ে এক গৃহবধূকে পাঁচ যুবক রাতভর ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার রাতে স্বামীর বাড়ি কুড়িগ্রাম থেকে রংপুর নগরীর সাতমাথা এলাকায় বাবার বাড়ি যাচ্ছিলেন ওই গৃহবধূ। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে মানাস নদীর পাড় থেকে নির্যাতিতাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

এদিকে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। তারা হলেন- উপজেলার চককানু গ্রামের খাইরুল ইসলামের ছেলে মোর্শেদুল ইসলাম ও একই গ্রামের শাকিরুল ইসলামের ছেলে জিয়াউর রহমান।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ৮টার দিকে সাজু মিয়া নামে পূর্বপরিচিত এক যুবক ‘কথা আছে’ বলে কাউনিয়ার বেইলি ব্রিজ এলাকায় অটোরিকশা থেকে গৃহবধূকে নামিয়ে নেন। কিছুক্ষণের মধ্যে তাকে পাশেই মানাস নদীর পাড়ে নিয়ে ধর্ষণ করেন তিনি। পরে আরও চার যুবক এসে পালাক্রমে রাতভর গৃহবধূকে ধর্ষণ করে। ভোরের দিকে নির্যাতিতা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়লে তাকে ফেলে চলে যায় সাজুসহ ৫ জন। ভোরে এলাকাবাসী তাকে সেখানে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে কাউনিয়া থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

সকালে তাকে রংপুর মেডিক্যালে ভর্তি করে পুলিশ। কাউনিয়া থানার ইনচার্জ মাসুমুর রহমান জানান, ৩০ বছরের বয়সী ওই গৃহবধূ নিজেই বাদী হয়ে কাউনিয়া থানায় ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ওই মামলায় গতকাল দুপুর পর্যন্ত ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা হলেন- পূর্ব-কানাইঘাটের আবদুল আখেরের ছেলে সাজু মিয়া, পূর্ব-চানঘাটের আবদুল কাদেরের ছেলে রাজু আহমেদ, বল্লভ বিষু গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আহসান কবীর সোহান ও তার ভাই আলমগীর হোসেন।

এদিকে শিবগঞ্জ উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের চককানু গ্রামের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীর বাবা ও মা টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলায় ইটভাটায় কাজ করেন। মেয়েটি তার দাদির সঙ্গে গ্রামের বাড়িতে থাকে। তার দাদি বাড়ির পাশে একটি মুদি দোকানে থাকেন। বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে ছাত্রী দোকান থেকে বাড়িতে যাচ্ছিল। এ সময় একই গ্রামের আক্কাস আলীর ছেলে বাবু প্রামাণিকসহ আরও দুজন পথরোধ করে মুখ চেপে ধরে মেয়েটিকে তুলে নিয়ে যায়। পরে পাশের একটি ড্রেনের পাড়ে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে তারা। মেয়েটি চিৎকার দিলে ধর্ষকরা দৌড়ে পালিয়ে বাড়িতে যায়। তবে পালিয়ে যাওয়ার সময় মেয়েটির স্বজনরা রাতেই বাবুবে আটক করে। পরে বাবুর পরিবারের লোকজন তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে দুজনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

শিবগঞ্জ থানা ওসি এসএম বদিউজ্জামান বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে মামলা নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে। মামলার ১ নম্বর আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

%d bloggers like this: