Logo
নোটিশ :
স্বাগতম একুশের আলো .....

স্থায়ী ঠিকানা পাচ্ছে বরিশালের ১হাজার ৫শ ৫৬টি পরিবার

স্থায়ী ঠিকানা পাচ্ছে বরিশালের ১হাজার ৫শ ৫৬টি পরিবার

 

স্থায়ী ঠিকানা পাচ্ছে বরিশালের দশটি উপজেলার ১হাজার ৫শ ৫৬টি পরিবার। ক্ষুদামুক্ত-দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা বিনির্মানে বাংলাদেশে একজন মানুষও গৃহহীন থাববেনা’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষে সারা বাংলাদেশের ন্যায় বরিশালেও ভুমিহীন ও গৃহহীনদের দুই শতাংশ জমি ও আধা পাকা ঘর র্নিমান করে দেওয়া হয়েছে। আগামী শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য নির্মিত ঘর হস্তান্তরের উদ্বোধন করবেন। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার দুপুরে বরিশাল সাকির্ট হাউসে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বরিশাল জেলা প্রশাসন। এসময় জেলা প্রশাসক মোঃ জসীম উদ্দিন হায়দার বলেন, সারা দেশের ন্যায় বরিশালেও সরকারি খাস জমিতে বরিশালের ১০টি উপজেলার ১৫৫৬টি পরিবারের মধ্যে ঘর হস্তান্তর করা হবে। এর মধ্যে শনিবার প্রথম ধাপে ১ হাজার ৯টি ঘর হস্তান্তর করা হবে। পর্যায়ক্রমে বাকি ৫৪৭টি ঘর ও দলিল সম্পাদনের কাজ আগামী ১৭ মার্চের মধ্যে সমাপ্ত করা হবে। আগামী শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঘরের উদ্বোধন করবেন। তিনি বলেন, বরিশালের মধ্যে বরিশাল সদর উপজেলায় ১৫৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মধ্যে ঘর হস্তান্তর করা হবে। বাকেরগঞ্জ উপজেলায় ১২০টি ঘরের মধ্যে আগামী শনিবার ৭০টি ঘর হস্তান্তর করা হবে। বাকি ৫০টি ঘর পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে হস্তান্তর করা হবে। মেহেন্দিগঞ্জে ১৫২ টির মধ্যে ১০০টি, উজিরপুরে ৭০টি, বানারীপাড়ায় ২০০টির মধ্যে ১২০টি, গৌরনদীতে ২০০টির মধ্যে ১২০টি, বাবুগঞ্জে ১৭০টির মধ্যে ১১০টি, হিজলায় ৫১টি, আগৈলঝাড়ায় ৩৬টি ঘর হস্তান্তর করা হবে। বাকী ঘরগুলো নির্মানাধীন থাকায় পরবর্তীতে হস্তান্তর করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক আরো বলেন, এই আধা পাকা ঘরগুলো র্নিমানে প্রতিটি ঘরে সরকারের ব্যায় হয়েছে ১লক্ষ ৭১ হাজার টাকা। বরিশালে ১৫৬৫টি ঘর র্নিমানে ব্যায় হয়েছে ২৬ কোটি ৬০লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা।  ঘরগুলো প্রায় ৩৯৪ বর্গ ফুটের। ঘরের সামনে একটি বারান্দা, ভিতরে দুটি কক্ষ, রান্না ঘর ও টয়লেট রয়েছে। উপার্জন ও কর্মক্ষম এলাকা গুলোর খাস জমি নির্বাচন করে এই ঘর নির্মান করা হয়েছে। যাতে গৃহহীন ও ভূমিহীনরা কাজ করে সাবলম্বি হতে পারে। এসকল পরিবারকে আয় বর্ধন প্রশিক্ষনও প্রদান করা হবে। তিনি বলেন, আগামী জুন মাস থেকে সরকার যাদের জমি আছে বাড়ি নেই তাদের তালিকা করে ঘর নির্মানের চিন্তা করছে। সেলক্ষেও আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী’র উপহারের ঘর নিয়ে কেউ যদি টাকা নিয়ে থাকে তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *